সংবাদ শিরোনাম:
» « মুজিববর্ষে চুনারুঘাটের ২০০ ভূমিহীন পরিবার মাথা গোজার ঠাইঁ পাচ্ছে» « সমাজ থেকে মাদক নির্মূল করতে হবে-প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী» « হবিগঞ্জে মহিলা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত» « কোন ব্যাংক বন্ধ হয়ে গেলে সব টাকা ফেরত পাবেন আমানতকারী» « শহরে ড্যান্ডি নেশার কবলে কোমলমতি শিশুরা» « পাইকারি-খুচরায় বাড়লো বিদ্যুতের দাম» « বাহুবলে অবৈধ বালু ও মাটি উত্তোলনের দায়ে ৩ লক্ষ টাকা জরিমানা» « বানিয়াচঙ্গে বর পক্ষের উপর কনে পক্ষের হামলা, আহত ১০» « যক্ষ্মা রোগ প্রতিরোধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিমিয়» « লাখাইয়ে মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন উদ্বোধন করছেন এমপি আবু জাহির

বড়লেখায় স্ত্রী-শাশুড়িসহ চারজনকে হত্যা করে চা শ্রমিকের আত্মহত্যা

স্বদেশবার্তা ডেস্ক ॥ পারিবারিক কলহের জেরে স্ত্রী, শাশুড়ি এবং দুই প্রতিবেশীকে হত্যা করে নির্মল কর্মকার (৩৮) নামের এক চা শ্রমিক নিজেই আত্মহত্যা করেছেন। গতকাল রোববার ভোর রাতে মৌলভীবাজারের বড়লেখা উপজেলার ভারত সীমান্তবর্তী দুর্গম পাহাড়ি এলাকার পাল্লাথল চা বাগানে লোমহর্ষক এই ঘটনা ঘটেছে। নিহত অন্যরা হচ্ছে- ঘাতক নির্মল কর্মকারের স্ত্রী জলি বুনার্জি (৩০), শাশুড়ি লক্ষ্মী বুনার্জি (৬০), প্রতিবেশী বসন্ত বক্তা (৬০) এবং বসন্ত বক্তার মেয়ে শিউলী বক্তা (১৪)। এই ঘটনায় বসন্ত বক্তার স্ত্রী কানন বক্তা গুরুতর আহত হয়েছেন। তাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনার সময় পালিয়ে বাঁচেন ঘাতকের স্ত্রীর আগের পক্ষের মেয়ে চন্দনা বুনার্জি (৯)। মৌলভীবাজারের পুলিশ সুপার মো. ফারুক আহমদ জানিয়েছে, পারিবারিক কলহের জেরেই এই মর্মান্তিক ঘটনা ঘটেছে বলে তাদের ধারণা। তিনি জানান, শনিবার রাতে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে অনেকক্ষণ ঝগড়া হয়েছিল বলে আমরা শুনেছি। আর এ থেকেই ঘটনার সূত্রপাত। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে বিকেল ৫টার দিকে ময়নাতদন্তের জন্য মৌলভীবাজার সদরের ২৫০ শয্যা হাসপাতালে পাঠিয়েছে বলে জানান তিনি। সরেজমিনে দেখা গেছে, রক্তাক্ত বসন্ত বক্তা ও তার মেয়ের লাশ পড়েছিল উঠানে। ঘরের মেঝেতে ছিল জলি ও তার মা লক্ষ্মীর লাশ। ঘরের এক কোনে তীরের সাথে ঝুলানো ছিল ঘাতক নির্মল কর্মকারের লাশ। পুলিশের কয়েকটি টিম ঘটনাস্থলে পৌঁছে লাশের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরী করে। বাগানের সাপ্তাহিক ছুটির দিন হওয়ায় কাজও ছিল না। তাই ঘটনাস্থলের আশপাশে নারী-পুরুষ চা শ্রমিক পরিবারের লোকজন জড়ো হন। মর্মস্পর্শী এই ঘটনায় স্তব্ধ হয়ে পড়েন বাগানের লোকজন। স্থানীয় বাসিন্দা ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গতকাল রোববার ভোররাতে উপজেলার উত্তর শাহবাজপুর ইউনিয়নের পাল্লাথল চা বাগানে পারিবারিক কলহের জের ধরে নির্মল নামে ওই ব্যক্তি প্রথমে তাঁর স্ত্রীকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে জখম করেন। ঠেকাতে আসলে প্রথমে শাশুড়িকে এবং পরে দুই প্রতিবেশীকে কুপিয়ে জখম করেন। ঘটনাস্থলে চারজনের মৃত্যু হয়। এ সময় গুরুতর আহত হন প্রতিবেশী কানন বক্তা। কোনো মতে বেঁচে যায় ঘাতকের সৎ মেয়ে চন্দনা। পাল্লাতল চা বাগান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণী পড়–য়া চন্দনা দৌঁড়ে পালিয়ে গিয়ে চিৎকার দিলে আশাপাশের শ্রমিকরা বাড়ি ঘেরাও করেন। এ অবস্থায় নির্মল পালিয়ে যেতে পারেনি। ঘরের দরজা লাগিয়ে দেয়। এরপর সে আত্মহত্যা করে। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে ঘরের দরজা ভেঙে ঘাতককে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পায়। অন্য লাশগুলো তখন ঘরের মেঝে ও উঠানে পড়েছিল। নির্মল এই বাগানের নিয়মিত শ্রমিক ছিলেন না। তিনি শ্বশুর বাড়িতেই থাকতেন। বাগানের বাসিন্দারা জানিয়েছেন, আনুমানিক দুই বছর আগে পাল্লাথল বাগানের বিষ্ণু বুনার্জির স্বামী পরিত্যক্তা মেয়ে জলি বুনার্জিকে বিয়ে করেন নির্মল কর্মকার। জলির আগের পক্ষের একটি মেয়ে ছিল। সে এর আগে অন্য বাগানে চা বাগানের শ্রমিক ছিল। জলিকে বিয়ে করে সে শ্বশুর বাড়িতে থাকছিল। মাঝে মাঝে বিভিন্ন বিষয়ে স্বামী স্ত্রীর মাঝে ঝগড়া হত। বাগানের বাসিন্দা লতা রানী কর্মকার বলেন, ‘এই রকম ঘটনা কোনোদিন বাগানে ঘটেনি। সকলেই শান্তিতে পরিবার নিয়ে বসবাস করছে। আমাদের বাপ-দাদা থেকে এ বাগানে বসবাস করি। এই ঘটনায় আমরা স্তব্ধ। হত্যাকারী নির্মল এই বাগানের শ্রমিক ছিল না। জলিকে সে বিয়ে করে এখানে থাকত। তার মূল বাড়ি কোথায় কেউ জানত না।’ ঘটনার সময় পালিয়ে বেঁচে যাওয়া নির্মলের স্ত্রীর আগের পক্ষের মেয়ে চন্দনা এখন অনেকটা বাকরুদ্ধ। সে কারো সাথে কথা বলছিল না। শুধু ফ্যাল ফ্যাল করে থাকিয়ে ছিল। নিহত জলির বাবা বিষ্ণু বুনার্জি বলেন, ‘মেয়ে আমাদের অ-মতে নির্মলকে বিয়ে করে। প্রায়ই তাদের মধ্যে ঝগড়া হত। দুই মাস ধরে আমি অন্য মেয়ের বাড়িতে থাকি। ঘটনার খবর পেয়ে আমি বাগানে এসে আমার স্ত্রী, মেয়েসহ সবার রক্তাক্ত দেহ দেখে স্তব্ধ হয়ে যাই।’
বাগানের সহকারী ব্যবস্থাপক জাকির হোসেন বলেন, ‘ঘাতক নির্মল কর্মকার আনুমানিক দুই বছর আগে জলি বুনার্র্জিকে বিয়ে করে এখানে বসবাস করে আসছিল। সে আমার বাগানের নিয়তিম কোনো চা শ্রমিকও নয়। এর আগে সে পার্শ্ববর্তী একটি চা বাগানে ছিল।’
খবর পেয়েই সকালে ঘটনাস্থলে যান মৌলভীবাজারের পুলিশ সুপার মো. ফারুক আহমদ, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট তানিয়া সুলতানা, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (পিবিআই) নজরুল ইসলাম ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (কুলাউড়া সার্কেল) কাওছার দস্তগীর, থানার অফিসার ইনচার্জ কর্মকর্তা ইয়াছিনুল হক, পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. জসীম প্রমুখ।

Share on Facebook
নিউজটি 19 বার পড়া হয়েছে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সর্বশেষ সংবাদ

মুজিববর্ষে চুনারুঘাটের ২০০ ভূমিহীন পরিবার মাথা গোজার ঠাইঁ পাচ্ছে

সমাজ থেকে মাদক নির্মূল করতে হবে-প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী

হবিগঞ্জে মহিলা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

কোন ব্যাংক বন্ধ হয়ে গেলে সব টাকা ফেরত পাবেন আমানতকারী

শহরে ড্যান্ডি নেশার কবলে কোমলমতি শিশুরা

পাইকারি-খুচরায় বাড়লো বিদ্যুতের দাম

বাহুবলে অবৈধ বালু ও মাটি উত্তোলনের দায়ে ৩ লক্ষ টাকা জরিমানা

বানিয়াচঙ্গে বর পক্ষের উপর কনে পক্ষের হামলা, আহত ১০

যক্ষ্মা রোগ প্রতিরোধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিমিয়

লাখাইয়ে মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন উদ্বোধন করছেন এমপি আবু জাহির

নবীগঞ্জে প্রধান শিক্ষকের সাথে সহকারি শিক্ষকদের বিরোধ ॥ পাঠদানে ব্যাঘাত

মাধবপুরে ২১ বোতল ভারতীয় ফেনসিডিল সহ আটক ৩

নবীগঞ্জে মানসিক ভারসাম্যহীন ব্যক্তির ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার

মাধবপুরে ট্রেনের ধাক্কায় ট্রাক চালক আহত

মাধবপুরে পিকনিক করতে আসা ছাত্র-চা শ্রমিক সংঘর্ষ

আব্দুল আহাদ ফারুক এর স্মরণে বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের শোকসভা

আজমিরীগঞ্জে কীটনাশক পানে যুবকের আত্মহত্যা

পাপিয়ার অবৈধ সম্পদের খোঁজ নিচ্ছে দুদক

নবীগঞ্জে শ্রমিকদের সাথে ভাড়া নিয়ে গ্রামবাসীর ব্যাপক সংঘর্ষ, অর্ধশতাধিক সিএনজি ভাংচুর ॥ আহত শতাধিক

একুশের চেতনা লালন করে আমাদেরকে অগ্রসর হতে হবে -এমপি আবু জাহির

সম্পাদক ও প্রকাশক ॥ মোঃ ইসমাইল হোসেন
প্রাইম অফসেট প্রিন্টিং প্রেস পৌর মার্কেট হবিগঞ্জ থেকে মুদ্রিত ও গার্নিং পার্ক হবিগঞ্জ হতে প্রকাশিত।।
মোবাইল ॥ ০১৭১৫-০০২৮৮৬
ইমেইল- swadeshbarta.hob@gmail.com
website : www.swadeshbarta.com